মাইক্রোসফট অফিস (Microsoft Office)

মাইক্রোসফট অফিস (Microsoft Office)

মাইক্রোসফট অফিস (Microsoft Office) একটি সফটওয়্যার প্যাকেজ যা কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের পাঠ্য প্রক্রিয়াকরণ, স্প্রেডশিট, উপস্থাপনা, ডাটাবেস, ইমেল, যোগাযোগ এবং ওয়েব ব্রাউজিং করতে দেয়। এটি বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সফটওয়্যার প্যাকেজগুলির মধ্যে একটি, এবং এটি ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক ব্যবহারকারীদের দ্বারা ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়।

 

মাইক্রোসফট অফিস কি ধরণের সফটওয়্যার ?

কম্পিউটার ব্যবহার করেন এমন প্রায় প্রত্যেকেরই একটি স্প্রেডশীট, ওয়ার্ড প্রসেসর এবং উপস্থাপনা সফ্টওয়্যার দ্বারা গঠিত একটি অফিস সফ্টওয়্যার স্যুট এর প্রয়োজন হয়।

মাইক্রোসফ্ট এগুলিকে এমএস অফিস স্যুট নামে একটি একক স্যুটে একত্রিত করে যা কয়েক দশক ধরে বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয়ভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

এই নিবন্ধে আমরা MS Office এর এমন সব আশ্চর্যজনক বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানাতে যাচ্ছি,

যেগুলিতে আপনাকে দেখাব কিভাবে আপনি আপনার শিক্ষাগত জীবনে বা ব্যবসায় এর সেরাটি ব্যবহার করতে পারেন।

Microsoft Office এর একাধিক সংস্করণ তৈরি করেছে যা Windows, Linux, এবং mac OS সহ বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা সমর্থিত হতে পারে।

এছাড়াও মাইক্রোসফট অফিস ১০২ টি ভিন্ন ভাষায় অফার করে।

এক নজরে মাইক্রোসফট অফিস (Microsoft Office) সম্পর্কে 

উন্নয়নকারী প্রতিষ্ঠানঃ মাইক্রোসফট
প্রাথমিক সংস্করণঃ ১৯ নভেম্বর ১৯৯০; ৩২ বছর আগে
স্থিতিশীল সংস্করণঃ ২০১৬
যে ভাষায় লিখিতঃ সি++
অপারেটিং সিস্টেমঃ মাইক্রোসফট উইন্ডোজ
উপলব্ধঃ ১০২টি ভাষায়

ধরনঃ অফিস স্যুট
লাইসেন্সঃ মালিকানাধীন বাণিজ্যিক সফটওয়্যার
ওয়েবসাইটঃ www.office.com

 

মাইক্রোসফট অফিসের মধ্যে কি কি থাকে ? 

মাইক্রোসফট অফিস হল আন্তঃসম্পর্কিত ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশনের একটি সেট আপ যেমন –

  • Microsoft PowerPoint: পাওয়ারপয়েন্ট হয়ে উঠেছে একটি কম্পোনেন্ট মাইক্রোসফট অফিস স্যুট। এটি মূলত designed করা হয়েছে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাথে গ্রুপ উপস্থাপনার জন্য ভিজ্যুয়ালিটি প্রদান করতে।
  • Microsoft Access: মাইক্রোসফট এক্সেস হল একটি ডাটাবেস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, এটি জেট ডাটাবেস ইঞ্জিনের উপর ভিত্তি করে নিজস্ব ফরম্যাটে ডেটা সঞ্চয় করে রাখে।
  •  Microsoft Excel: মাইক্রোসফট এক্সেল হল একটি স্প্রেডশীট যা তৈরি হয় সফটওয়্যার কোম্পানির Microsoft দ্বারা। Microsoft Excel এর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য হল গ্রাফিক্স টুল, পিভট টেবিল এবং অ্যাপ্লিকেশনের জন্য ভিজ্যুয়াল বেসিক নামে একটি ম্যাক্রো প্রোগ্রামিং language.
  •  Microsoft Outlook: মাইক্রোসফ্ট আউটলুক কে একটি স্বতন্ত্র অ্যাপ্লিকেশন হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং এটি shared মেইলবক্স, ক্যালেন্ডার, exchange পাবলিক ফোল্ডার, শেয়ার পয়েন্ট list এবং মিটিং শিডিউলের মত একাধিক ব্যবহারকারীর দের জন্য মাইক্রোসফ্ট এক্সচেঞ্জ সার্ভার এবং মাইক্রোসফ্ট শেয়ার পয়েন্ট সার্ভারের সাথে কাজ করতে পারে।
  •  Microsoft OneNote: মাইক্রোসফট ওয়াননোট হল Microsoft Office এবং Windows 10-এর একটি অংশ। এটি Windows, Windows ফোন, Mac অপারেটিং সিস্টেমের জন্য একটি বিনামূল্যের স্বতন্ত্র অ্যাপ্লিকেশন হিসেবেও উপলব্ধ রয়েছে। মাইক্রোসফ্ট ওয়ান নোট হল মাইক্রোসফ্ট অফিসের একটি ওয়েব-ভিত্তিক সংস্করণ।
  •  Microsoft Word: মাইক্রোসফট ওয়ার্ড হল একটি গ্রাফিক্যাল ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রোগ্রাম। এটি documents পরিচালনা এবং share করা যেমন ইমেল, বই, প্রতিবেদন এবং চিঠির মতো বিভিন্ন নথি সম্পাদনা এবং তৈরি করা এবং গ্রাফিক ডিজাইন সহ ছবি, চার্ট, ডায়াগ্রামের মতো একটি ব্যবসায়িক নথি তৈরি করার মত কাজ করে থাকেন।

Microsoft office এর কাজ কি ? 

Microsoft Office হল অফিস-সম্পর্কিত অ্যাপ্লিকেশন গুলির একটি সেটআপ যা মূলত ব্যবসা বা অফিসের উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়।

MS অফিস প্রাথমিক অফিসের কাজ গুলিকে সহজ করতে এবং কাজের ফলাফলকে আরও উন্নত করতে ব্যবহৃত হয়।

প্রতিটি অ্যাপ্লিকেশন একটি অনন্য উদ্দেশ্যকে পরিবেশন করে এবং নির্দিষ্ট কাজগুলিকে অফার করে,

যেমন MS ওয়ার্ড শব্দ প্রক্রিয়াকরণের জন্য ব্যবহৃত হয়, ডেটা পরিচালনার জন্য এক্সেল, PROJECT তৈরির জন্য পাওয়ারপয়েন্ট এবং ইমেলগুলি সংগঠিত করার জন্য আউটলুক ইত্যাদি।

MS Office অনেক আকর্ষণীয় এবং দরকারী বৈশিষ্ট্য বহন করে যা আমাদের এই ডিজিটাল বিশ্বে থাকা আবশ্যক।

এটি বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত অ্যাপ্লিকেশন সহ সর্বাধিক ক্রমবর্ধমান শিল্পগুলির মধ্যে একটি অন্যতম।

দেখা যাক ব্যবসার পাশাপাশি শিক্ষার ক্ষেত্রেও এর কী ধরনের উপকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

 MS POWERPOINT

  • এটি release হয় এপ্রিলের ২০ তারিখে, ১৯৮৭ সালে।
  • অডিও ভিসুয়াল প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে এটা ব্যবহার করা হয়।
  • একটা প্রেজেন্টেশন অনেকগুলো স্লাইড নিয়ে তৈরি হয়, যেগুলোতে ডেটা অথবা ইনফরমেশন থাকে।
  • প্রতিটি স্লাইড এর মধ্যে অডিও, ভিডিও, গ্রাফিক্স, টেক্সট, বুলেট নম্বরিং, টেবিল ইত্যাদিও থাকতেই পারে।
  • এটির ক্ষেত্রে ফাইল এক্সটেনশন, যখন কম্পিউটারে সংরক্ষিত হয়, তা হল “.ppt” আকারে।
  • বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটি professional কাজে ব্যবহার করা হয়।
  • PowerPoint ব্যবহার করে presentation তৈরী করলে session আরো interactive হয়ে ওঠে।

MS WORD

  •  এটি প্রথম release হয় অক্টোবর এর ২৫ তারিখে, ১৯৮৩ সালে।
  • Doc ফাইলের এক্সটেনশন হল “.doc”।
  • এটি প্রচন্ড পরিমাণে ব্যবহৃত হয় Text Document তৈরিতে।
  • MS WORD এর সাহায্যে বিভিন্ন ধরণের টেমপ্লেট তৈরি করা যেতে পারে।
  •  ওয়ার্ক আর্ট, রঙ, ছবি, অ্যানিমেশন একই ফাইলে পাঠ্যের সাথে যোগ করা যেতে পারে যা একটি নথি আকারে ডাউনলোডযোগ্য।
  •  লেখকরা তাদের কাজ লিখতে/সম্পাদনা করতে ব্যবহার করতে পারেন এই MS WORD।

MS EXCEL

  • প্রধানত ডেটাবেজ তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।
  • এটা ডেটা প্রসেসিং এ ব্যবহার করা হয়।
  • একটি স্প্রেডশীটে row এবং কলামের আকারে গ্রিড থাকে যা পরিচালনা করা অনেক সহজ হয় এবং কাগজের প্রতিস্থাপন হিসাবে এটিকে ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • MS EXCEL ব্যবহার করে ট্যাবুলার ফরম্যাটে বড় ডেটাকে সহজেই পরিচালনা এবং সংরক্ষণ করা যায়।
  • সেকেন্ডের মধ্যে স্প্রেডশীটের cell এ প্রবেশ করা বিপুল পরিমাণ ডেটার উপর ভিত্তি করে গণনা করা যেতে পারে খুব সহজেই।
  • যখন কম্পিউটারে সংরক্ষিত হয় তখন এর ফাইল এক্সটেনশন থাকে “.xls” আকারে।

MS ACCESS

  • এটি release হয় নভেম্বরের ১৩ তারিখে, ১৯৯২ সালে।
  • এটা একটি database management software (DBMS)।
  • টেবিল কোয়ারিস ফর্ম এবং রিপোর্ট এই MS ACCESS এর মাধ্যমে তৈরি হয়।
  • অন্যান্য ফরমেটে ডেটার ইমপোর্ট এক্সপোর্ট এই MS ACCESS ই করে থাকে।
  • এই ফাইল এর এক্সটেনশন টি হল “.accdb”

MS ONENOTE

  • এটি release হয় নভেম্বরের ১৯ তারিখে, ২০০৩ সালে।
  • এটি একটি নোট টেকিং অ্যাপ্লিকেশন।
  • নোটের মধ্যে টেক্সট ইমেজ টেবিল সমস্ত কিছু ইনক্লুড থাকতে পারে।
  • অনলাইন এবং অফলাইন দুটোতেই ব্যবহার করা হয় এবং এটি একটি মাল্টি ইউজার অ্যাপ্লিকেশন।
  • এর ফাইল এক্সটেনশন টি হল “.one”

MS OUTLOOK

  • এটা রিলিজ হয়েছিল ১৬ জানুয়ারি, ১৯৯৭ এ।
  • এটি একটা পার্সোনাল ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম।
  • এটি সিঙ্গেল ইউজার অ্যাপ্লিকেশন এবং মাল্টি ইউজার অ্যাপ্লিকেশন দুটোর ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • এটি অফিস suite এর ইমেল ক্লাইন্ট হিসেবেই ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • এটার ফাইল এক্সটেনশন টি হল “.accdb”

মাইক্রোসফট এর অন্য ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন

  • মাইক্রোসফট পাবলিশার
  • মাইক্রোসফট শেয়ারপয়েন্ট ডিজাইনার

মাইক্রোসফট এর সার্ভার অ্যাপ্লিকেশন

  • মাইক্রোসফট শেয়ারপয়েন্ট
  • মাইক্রোসফট লিঙ্ক সার্ভার

মাইক্রোসফট অফিস সাধারণভাবে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে চালিত হয়, তবে এটি প্রায়শই ম্যাক ও লিনাক্স প্ল্যাটফর্মেও উপলব্ধ। মাইক্রোসফট অফিসের বেশিরভাগ সংস্করণ একটি মাস্টার সেট যা একসাথে ক্রয় করা যায়, তবে কিছু স্বতন্ত্র সংস্করণ বিশেষ করে ব্যবসায়িক ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ করে সরঞ্জামিত অ্যাপ্লিকেশন বা লাইসেন্স চালিত প্যাকেজের সাথে অনুলিপি বা মাস্টার সেট হিসেবে প্রদান করা হয়।

মাইক্রোসফট অফিস একটি ব্যক্তিগত বা পেশাদার প্রয়োজন অনুযায়ী প্রাসঙ্গিক সুইট প্রদান করে, যা প্রায় প্রতিষ্ঠানের প্রাথমিক কাজের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *